সোনালী মিত্র

ছবিওয়ালা

 

 

এই যে ম্যাডাম ,আর একটু ঠোঁট খুলে হাসুন,
উত্তাল ঢেউকে বাঁ পাশে রেখে,স্যারের বুকে আলতো করে মাথা রাখুন।

বাহ বেশ হয়েছে…
আমার চশমার হাই পাওয়ার দেখে চমকে যাবেন না!
বিশ্বাস রাখুন,এ পেশায় পঁয়ত্রিশ বছরের নোনাবালি জমে।
আর, আর একটা ছবি,ম্যাডাম।
দানবের মতো তেড়ে আসা সমুদ্রকে অগ্রাহ্য করুন,
যে ভাবে এপ্রিলের কড়া বালুতট তুখোড় সূর্য তুড়িয়ে
সুখমুহৃর্ত বুকে ঝুলিয়ে ঘুরি আমরা ছবিওয়ালা ।
ঠিক সেই ভাবেই , ভয় পাবেন না প্লিজ।

মোমের শরীর থেকে গলে পড়া সোনা নিয়ে এইবার স্যারের গলাটা
জড়িয়ে ধরে টুপ করে উঠে পড়ুন তার কোলে,
আর হ্যাঁ চোখটা একদম রাখবেন স্যারের চোখে।
দেড়শো টাকায় তিনটে,এ তল্লাটে কেউ দেবে না জানবেন।

ঝকঝকে এনড্রয়েড পকেটে ভরে রাখুন,ক্যামেরায় আমার
মেগাপিক্সেল কম হতে পারে তবে ফ্রেমে ঝুলিয়ে ঘরের
দেওয়ালকে আন্তরিক সমৃদ্ধি দিতে সক্ষম এ ছবিরা।
ঢেউয়ের উপর চড়ে ঢেউ ছোঁয়ার নেশায় উজাগর
হোক মধুচন্দ্রিমা যাপন।

ঠিক চিনেছি জানেন,আপনাদের পিতা-মাতাও এসেছিলেন,
তাদেরও মাতা-পিতা সুদূর অতীতে।
আমরা খুব আশাবাদী বিধুরস্বপ্ন ছুঁয়ে আপনাদের সন্তানেরাও
আসবেন ঠিক একদিন।
আপনাদের এই সুখের মুহূর্ত ধরে দিতে পারলেই,
ঘরে আমার বাপ মরা নাতনীটার গরম ভাতের সুখ কিনে
নেওয়া যাবে লবন ও ঘামজলে।