কথা

শুধু লেখা আসে।কোথা থেকে আসে? নিঃস্ব দুপুরের ফাঁকা মাঠ থেকে… বুড়ো তেঁতুল গাছ থেকে…মানুষের শুষে নেওয়া নদী থেকে… মাংসের লোভে বিষ খাওয়ানো পাখির বিষণ্ণ মৃত্যু থেকে… অভিমানী ভালবাসা থেকে… বাংলা ভাষার অপমান থেকে। কবিতা আশ্রম ঘিরে অদ্ভুত শূন্যতায় পাক খায় শত শত লেখা! তবে কিছু লেখা কি ফুর্তি থেকে আসে না? আস্ফালন থেকে আসে না? ক্ষমতা থেকে আসে না? বাহাদুরি থেকে আসে না? তারাও আসে। কিন্তু ব্যথাতুর লেখার পাশে দাপট দেখানো লেখারা আসে কেন?  কবিতা আশ্রম তাদের জন্য তো  কিছুই করতে পারবে না।স্বপ্ন ছাড়া আশ্রমের সম্বল নেই। পরাক্রমশালীদের বাহুবল স্বপ্নকে উপহাস করে, আবার তাকেই দখল করতে চায়।কিন্তু মজা হচ্ছে, বাহুবল প্রদর্শনমূলক, আর স্বপ্ন হল মনের খেলা। সে খেলায় আমরা ফুরোব না, বরং কুড়োব চোরাশিকারীর গুলিতে মৃত শেষ সাদা জিরাফ…তার স্মৃতিতে গাছ লাগাব, রক্তকরবী বা নন্দিনী-গাছ…

ভালবাসার দিব্যি!

চিত্রঋণ : গৌতম সেন